লম্বা, টানটান ঝলমলে চুল কে না চায়। হাল ফ্যাশনে সোজা চুলের কদর তাই খুবই বেশি।বিউটি পার্লারগুলোতে চুলের রিবন্ডিং এর জন্য ভিড় চোখে পরার মতো। তবে রিবন্ডিং চুল দেখতে যেমন আকর্ষনীয় তেমনি এর রক্ষণাবেক্ষনও সমান গুরুত্বপূর্ণ।রিবন্ড করা চুল যত্নের অভাবে ভেঙে যায়, রুক্ষ হয় ও পড়ে যায়। এ জন্য প্রয়োজন অতিরিক্ত যত্নের।

 যত্ন করার টিপসঃ

১।শ্যাম্পু করার আগে

রাতে নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল চুলে ও স্কাল্পে ম্যাসাজ করে নিন। মোটা দাড়ের চিরুনি দিয়ে কিছুক্ষণ চুল আঁচড়ে নিন। গোসলের আগে গরম পানিতে তোয়ালে চুবিয়ে আধা ঘণ্টা চুল পেঁচিয়ে রাখুন। তারপর শ্যাম্পু করুন। এতে রক্ত সাঞ্চালন বাড়বে ও রুক্ষভাব কমবে।

২।শ্যাম্পু করা

সপ্তাহে কমপক্ষে তিনবার শ্যাম্পু করুন। কারণ রিবন্ডিং চুল খোলা রাখায় দ্রুত ময়লা হয়। বেশি শ্যাম্পু করায় চুল রুক্ষ হলে মাইল্ড শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন।আর শ্যাম্পু করার পর অবশ্যই কন্ডিশনার দিবেন।

৩।উপযোগী প্যাক

ডিম একটা, ক্যাস্টর অয়েল এক চামচ, লেবুর রস এক চামচ, মধু এক চামচ মিশিয়ে মাথার স্ক্যাল্পে লাগান। এরপর শাওয়ার ক্যাপ বা তোয়ালে দিয়ে মাথা কিসুখন ঢেকে রাখুন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন।

সমস্যা ও সমাধান

চুল নিস্তেজ হয়ে পরছে? শ্যাম্পু করার পর দুই লিটার পানিতে কয়েক ফোঁটা ভিনেগার মিশিয়ে সেই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। এতে চুলের উজ্জ্বলতাও বাড়বে। চুল ভেঙে গেলে সপ্তাহে একবার হট অয়েল ম্যাসাজ করতে পারেন। আর খুশকির সমস্যা বাড়লে মাথার স্ক্যাল্পে লেবু বা পেঁয়াজের রস লাগিয়ে কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ফেলবেন। চুল রুক্ষ হলে গোসলের পর এক মগ পানিতে এক চামচ মধু মিশিয়ে চুল ধুয়ে নিন। চুল মসৃণ হবে। চুল সিল্কি করতে চাইলে চার কাপ পানিতে চা-পাতা ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে ছেঁকে চুল ধুয়ে নিবেন।

টিপস যা যা করবেন নাঃ

১।গরম পানি ব্যবহার করা যাবেনা।
২।যে কোন ধরনের হিট দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। চুলে ব্লো ড্রাই, স্টেটনার, কার্লার এগুলো ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
৩।চুল কানের পেছনে দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। চুল কানের পেছনে দিলে আপনার সামনের চুলে ভাঁজ পড়ে যায়।
৪।সরাসরি সূর্যের তাপ, ধুলাবালি, বৃষ্টি যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন।
৫।বৃষ্টির পানি লাগলে যত দ্রুত সম্ভব চুল ধোয়ার চেষ্টা করবেন।
৬।কালার, হাইলাইট এগুলো থেকে বিরত থাকুন।
৭।চুল রিবন্ডিং অথবা স্ট্রেইট করার পর চুলে মেহেদী বা হেনা ব্যবহারে বিরত থাকুন।
৮।রিবন্ডিং অথবা স্ট্রেইট করার অন্তত দুই মাস আগ থেকেই মেহেদী বা হেনা ব্যবহার করবেন না।
৯।রাতে শোয়ার সময় চুল গুছিয়ে শোবেন। চুল হেয়ার ব্যান্ড দিয়ে হাল্কা করে বেঁধে ঘুমান।
১০।চুলে বেণী অথবা বেণীর মতো হেয়ারস্টাইল করা থেকে বিরত থাকুন।