মুরগী খেতে কার না ভাল লাগে? ছেলে বুড়ো থেকে শুরু করে সবাই খেতে পছন্দ করে মুরগীর আইটেম। তাই মুরগীর আইটেমে যদি ভিন্ন তা থাকে তাহলে তো কথাই নেই। যে খাবে বা যে রান্না করে খাওয়াবে তাদের জন্য পোয়া ভার।

তাই মুরগীর আইটেম সবসময় এক রকম রান্না না করে একটু ভিন্ন করলে কেমন হয়? অবশ্যই ভাল হয়। তাই মুরগীর আইটেমে ভিন্নতা আনতে আজকে আপনাদের জানাব কিভাবে মুরগীর কিমা দিয়ে পাঁচমিশালি সবজি রান্না করা যায়।

সবজি খাওয়া ভাল কিন্তু কেউই সহজে খেতে চায় না। অসহ্য লাগে খেতে।  তাই আপনি সহজেই এক ঢিলে দুই পাখি মারতে পারেন। শব্জিও খাওয়া হবে আবার মুরগিও খাওয়া হবে এক সাথে।

আর আপনাকে দুই আইটেম রান্নাও করতে হবে না। আপনার সময় কম লাগবে। কষ্টও কম হবে রান্না করতে। অর্থাৎ বাড়তি আইটেম এর কোন ঝামেলাই নেই।  তাই চলুন দেখে নেয়া যাক কি ভাবে সহজেই মুরগীর কিমা দিয়ে সবজি রান্না করা যায়।

মুরগীর কিমা দিয়ে পাঁচমিশালি সবজি রান্নার পদ্ধতি

উপকরণ

মুরগির কিমা =১ কাপ
মিষ্টি কুমড়া টুকরা =হাফ কাপ
আলু টুকরা =হাফ কাপ
পেপে টুকরা =হাফ কাপ
লাউ টুকরা =হাফ কাপ
ঝিঙা টুকরা =হাফ কাপ
পাঁচফোড়ন =২ চা চামচ
আদা ছেঁচা =দেড় টেবিল চামচ
দুধ =১/৪ কাপ
ঘি =২ চা চামচ
তেল =২ টেবিল চামচ
কাঁচামরিচ =কয়েকটা
লবণ =স্বাদমত
ধনিয়া পাতা কুচি =(পরিবেশন এর জন্য)

প্রণালী

পদ্ধতি ১

প্রথমেই হাড়িতে তেল দিয়ে তেল হাল্কা গরম করে নিন । তেল গরম হলেই এতে পাঁচফোড়ন দিয়ে দিন। পাঁচফোড়ন ফুটতে শুরু করলে ১ টেবিল চামচ আদা ছেঁচা দিয়ে নিন।

পদ্ধতি ২

এবার এতে মুরগির কিমা দিয়ে ৪ থেকে ৫ মিনিট রান্না করুন। এখন মিষ্টি কুমড়া আর আলু দিয়ে রান্না করুন ১০ থেকে ১২ মিনিট ।এখন এতে টুকরা করা লাউ, পেপে , ঝিঙা দিন। সাথে একটু আদা ছেঁচা দিন।

পদ্ধতি ৩

এবার দুধ, হাফ কাপ গরম পানি ,কাঁচামরিচ আর লবণ স্বাদমত দিয়ে দিন। এবার মিডিয়াম আঁচে ঢাকনা লাগিয়ে রান্না করুন আরও ১০ মিনিট এর মত।

পরিশেষে

রান্না হয়ে গেলে নামানোর আগে উপরে ঘি ছড়িয়ে দিন। ধনিয়া পাতা কুচি ছিটিয়ে দিন। এবার পরোটা , রুটি কিংবা ভাতের সাথে পরিবেশন করুন।