খুব গরম পরছে।শুধু পানি খেতে আর ইচ্ছে করছে না। তাই এই গরমে চাই একটি স্বাস্থ্যসম্মত পানীয়। যা খেতেও  মজা , পুষ্টিকর আবার স্বাস্থ্যসম্মত। তাই শরীর মন ঠাণ্ডা এবং মনে প্রশান্তি আনতে খেতে পারেন লাচ্ছি। হাতের কাছে যা থাকে তাই দিয়েই বানাতে পারেন বাদামের ঠাণ্ডা লাচ্ছি।

বাদামে থাকে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ই, ফাইবার, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডসহ আরও অনেক পুষ্টিগুণ!

আবার যারা ডায়েট চার্ট মেনে চলেন তাদের জন্য এটা একদম পারফেক্ট পানীয়। এতে কোন বাড়তি চিনি ব্যাবহার করা হয় না।

তাই যারা বাড়তি চিনি পছন্দ করেন না তারাও এটা নির্ভয়ে খেতে পারেন। তাহলে চলুন দেখা যাক বাদামের লাচ্ছি বানানোর সহজ পদ্ধতি।

 

বাদাম লাচ্ছি তৈরির নিয়ম

উপকরণ

বাদাম=১/২ কাপ (কাজুবাদাম, চিনাবাদাম, আখরোট বা পেস্তা)
টকদই= ১ কাপ
ঘন দুধ-=২ কাপ
কলা=১টি
বরফ কুঁচি= ২ টেবিল চামচ
মধু=৪ চা চামচ
ভ্যানিলা অ্যাসেন্স= ২ ফোঁটা

প্রস্তুত প্রণালী

যেকোনো ধরনের বাদাম দিয়েই এই লাচ্ছি বানানো যাবে! প্রথমে বাদামগুলো কিছুক্ষণের জন্য পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে।

এবারে একটি ব্লেন্ডারে বাদাম ও মধু দিয়ে ১ মিনিটের মত ভাল করে ব্লেন্ড করে নিন।

বাদাম খুব বেশি মিহি না করলেও চলবে।

তারপর এতে একে একে টকদই, তরল দুধ, কলা, বরফ কুঁচি ও সামান্য একটু ভ্যানিলা অ্যাসেন্স দিয়ে ৩০ সেকেন্ড বিট করে নিতে হবে। মিশ্রণটি দেখতে ক্রিমি ও স্মুথ হতে হবে।

 

টুকিটাকি

যারা লাচ্ছি ঘন খেতে পছন্দ করেন না বা খেতে পারেন না তারা চাইলে পাতলা করে নিতে পারেন। হালকা বা পাতলা করে খেতে চাইলে, তারা এতে ঠাণ্ডা পানি যোগ করতে পারেন। কিন্তু বাদামের লাচ্ছি একটু ঘন হলেই ভাল হয়।

বাসায় যদি ভ্যানিলা অ্যাসেন্স না থাকে, তাহলে এতে সামান্য এলাচ গুঁড়ো দিয়ে দিতে পারেন। এটা আসলে ফ্লেবারের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

এবার পরিবেশনের গ্লাসে ঢেলে ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা বাদাম লাচ্ছি পরিবেশন করুন। আপনি চাইলে নিজের মনমত সাজিয়েও পরিবেশন করতে পারেন।

সাজানোর জন্য উপরে বাদাম কুঁচি বা পুদিনা পাতা দিতে পারেন। তাই আর দেরি না করে আজই বানিয়ে ফেলুন মজাদার লোভনীয় বাদামের লাচ্ছি!