যুগে যুগে রূপচর্চায় ব্যবহৃত হয়ে এসেছে নানা উপকরণ। এর মধ্যে শসা অন্যতম। গরমে কোনও কিছুই ভাল লাগে না করতে। এই গরমে মুখের সমস্যা হলে,জীবন হয়ে ওঠে আরও পেরাময়। তাই সহজেই আপনি আপনার মুখের যত্ন বা হালকা রূপচর্চায় নিজেকে সতেজ রাখতে পারেন শসা এর মাধ্যমে।

আসুন জেনে নেই শসার প্যাক তৈরির নিয়মাবলী-

কিউকাম্বার প্যাকঃ

তৈলাক্ত ত্বক

১। তৈলাক্ত ত্বক নিয়ে সমস্যায় ভোগেন না এমন মানুষ নাই বলাই যায়। যাদের তৈলাক্ত ত্বক তারা প্রথমে ফেসওয়াস দিয়ে মুখ ধুয়ে নিবেন।

তারপর শশার রস, আপেল সাইডার ভিনেগার, টমেটোর রস এবং এলভেরা জেল একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগাতে পারেন। এতে করে ত্বকের তৈলাক্ত সমস্যা দূর হবে।

ত্বকের রুক্ষভাব দূর

২। একটি শশা ব্লেন্ডারে ভালো মতো ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরী করতে হবে। পেস্ট তৈরি করে ২ চামচ লেবুর রস এবং ১ চা চামচ মধু মিশিয়ে মুখে এবং ঘাড়ে লাগাতে হবে।

২০ মিনিট রেখে দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক ত্বকের রুক্ষভাব দূর করে চেহারায় উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনে।

চোখের ডার্ক সার্কেল

৩। চোখের ডার্ক সার্কেল কমাতে শশা অনেক কার্যকর। শশা স্লাইস করে কেটে বা তুলার মধ্যে শশার রস লাগিয়ে চোখের উপর ২০ মিনিট রাখুন। এটি নিয়মিত ব্যবহারে ডার্ক সার্কেল কমবে।

রোদে পোড়া ভাব

৪।ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করতে চাইলে বাইরে থেকে এসেই মুখ ধুয়ে শুধু শশার রস লাগান। এটি আপনাকে সান বার্ন দূর করে আগের রুপ ফিরিয়ে দিবে।

বয়সের ছাপ

৫ ।বয়সের ছাপ লুকাতে চান? ২ টেবিল চামচ টক দই, আধা চামচ মধু এবং লেবুর রসের সাথে ২ চামচ শশা বাটা এবং ২ টি ভিটামিন ই ক্যাপসুল ভালো মতো মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন।

এটি মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি ত্বকের মরা কোষ, কালো ভাব দূর করে আপনাকে টানটান এবং সুন্দর রাখবে।

ব্রণের সমস্যায়

৬। ব্রণের সমস্যায় ভুগচেন?ব্রন দূর করতে ২ চা চামচ শশার রসের সঙ্গে গোলাপ জল এবং মুলতানি মাটি মিশিয়ে প্যাক তৈরী করুন।

এটি মুখে ভালো মতো লাগিয়ে ১৫ মিনিট রাখুন। হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি নিয়মিত ব্যবহারে ব্রণ কমে যাবে।

শসায় রূপচর্চায় দারুণ দক্ষতার পাশাপাশি রয়েছে নানা পুষ্টিগুণ। সব ধরণের ত্বকেই এটি উপকারী ভূমিকা রাখতে সক্ষম। তাই আপনার ত্বক যেমনি হোক না কেন,নিরভয়ে আপনি শসা দিয়ে রূপচর্চা করতে পারবেন।