You are here:Home-সামাজিক মাধ্যম-গুগোল প্লাস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার উপায়

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ব্যাবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার  উপায় সমূহ বর্তমান এমন মানুষ খুজে পাওয়া মুশকিল যিনি ফেসবুক, টুইটার বা গুগল প্লাস এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাবহার করেন না। প্রায় সকলে প্রতিনিয়ত নিজেদের চিন্তা-ভাবনা থেকে শুরু করে ছবি, ভিডিও প্রভিতি কনটেন্ট শেয়ার করে থাকেন সোশ্যাল মিডিয়াতে। তবে এসব ধরনের তথ্য যদি কোন অবাঞ্ছিত মানুষের হাতে পরে যায় তখন নানা ধরনের সমস্যায় পরতে হয়। হ্যাকাররাও অনেক সময় তথ্য চুরির জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ওপরে নির্ভর করে। তাই এসব মাধ্যম গুলি ব্যাবহারের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। ১। তথ্যের গোপনীয়তা নিয়ন্ত্রণ করুন ফেসবুক, টুইটার বা গুগল প্লাস সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে প্রতিদিন অনেক তথ্য শেয়ার করেন ব্যাবহারকারীরা। তবে সব তথ্য সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা ঠিক নয়। সংবেদনশীল তথ্যগুলো কেবল বিশ্বস্ত

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার উপায়2019-07-03T00:07:23+06:00

সোশ্যাল মিডিয়া কি? সোশ্যাল মিডিয়ার ক্ষতিকারক প্রভাব গুলো তুলে ধরা হল।

বর্তমান সময়ে পৃথিবীকে আমাদের হাতের মুঠোয় এনে দিয়েছে যে প্রযুক্তি তার নাম দেওয়া হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা সোশ্যাল মিডিয়া।এই সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের পুরোনো সেই দিন গুলোর কথা ভুলিয়ে দিয়েছে, যে কোন এককালে আমরা চাইলেই আমাদের প্রিয় জনের খোজ নিতে পারতাম না। আজ আর সেই সব দিন গুলো নেই। মানুষ সেই দিন গুলোকে মনেও করে না খুব একটা কারণ নিত্য নতুন প্রযুক্তি আমাদের সব কিছু কেই আপন করে দিয়েছে। আর এ কারনেই এই পর্বে সেই সকল সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম এর ফলে আমাদের যুবকদের মাঝে যে ক্ষতিকর প্রভাব পড়েছে তা তুলে ধরলাম।   আমরা জেনে নেই সোশ্যাল মিডিয়া কি? আমরা যাকে ফেইসবুক নামে চিনি এটাই একটি এই সোশ্যাল মিডিয়া।এ রকম আরো অনেক সোশ্যাল মিডিয়া রয়েছে যেমনঃ

সোশ্যাল মিডিয়া কি? সোশ্যাল মিডিয়ার ক্ষতিকারক প্রভাব গুলো তুলে ধরা হল।2019-03-01T14:37:21+06:00

বর্তমান সময়ের যোগাযোগের জনপ্রিয় কিছু মাধ্যম

কিছু দিন পূর্বেই আমাদের এই যুগকে বর্তমান আধুনিক যুগ বলা হত কিন্তু এখন আমরা বর্তমান আধুনিক যুগ বলি না। আমরা এখন বলি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যুগ। কারন তথ্য প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে যোগাযোগের ক্ষেত্রেও অনেক বেশি সাফল্য অর্জন হয়েছে। একটা বিশেষ সময় ছিল যখন মানুষ পায়ে হেটে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াত করতো। তারপর ধিরে ধিরে বিজ্ঞানের উৎকর্ষ শক্তির ফলে সেই সমস্যার সমাধান হয়েছে কিন্তু তথ্য আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে খুব বেশি উন্নয়ন সাধিত হয় নি। তবে আধুনিক যুগে ইন্টারনেট আবিষ্কারের পর থেকে শুরু হয়েছে আধুনিক তথ্য ও যোগাযোগ এর বিশেষ একটি মাধ্যম, যার মাধ্যমে যোগাযোগ কে করেছে সহজ থেকে আরও সহজ। যোগাযোগের এমন সহজ মাধ্যমের ফলে পুরো বিশ্বটা যেন একটা গ্রামে পরিণত হয়েছে। আগে

বর্তমান সময়ের যোগাযোগের জনপ্রিয় কিছু মাধ্যম2017-04-15T09:02:36+06:00