You are here:Home-লাইফ স্টাইল

সাজগোজের ফ্যাশন বা স্টাইল এর পূর্ণতায় চাই ঘড়ি

ঘড়ি জীবন চলার পথের অন্যতম অনুষঙ্গ। সময়ের বিবর্তনে এর ফলে জায়গা দখল করেছে মুঠোফোন। তাই ঘড়ির অবস্থান এখন প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ফ্যাশনে।প্রয়োজনের সঙ্গে ফ্যাশনের কথা মাথায় রেখে তরুণ-তরুণী অর্থাৎ তরুন প্রজন্মের সবার কাছেই হাতঘড়ির ব্যবহারে পরিবর্তন এসেছে। বাজার ঘুরলে দেখা যায় ঘড়িগুলোতে ডায়াল ও চেনে এসেছে ভিন্নতা। তবে তরুণদের কাছে সব সময় ব্র্যান্ডের ঘড়িগুলোই সবসময় চাহিদার শীর্ষে থাকে। কারণ এগুলো যেমন দেখতে ফ্যাশনেবল, তেমনি টেকেও অনেক দিন। কার জন্য কেমন ঘড়ি আপনি প্রথমেই ঠিক করুন কোন ধরনের ঘড়ি ব্যবহার করতে চান। বাজারে আছে ব্যাটারিচালিত কোয়ার্টজ মুভমেন্ট ঘড়ি ও মেকানিজম মুভমেন্ট ঘড়ি। এর বাইরেও ডিজিটাল ঘড়ি আছে, এতে আছে প্রযুক্তির সব সুবিধা। আবার কোয়ার্টজ মুভমেন্টে ঘড়ি প্রতি সেকেন্ডে কয়েক হাজারবার ভাইব্রেশন দিয়ে থাকে। এই ঘড়ির ব্যাটারি

সাজগোজের ফ্যাশন বা স্টাইল এর পূর্ণতায় চাই ঘড়ি2019-07-18T17:45:21+06:00

দাম্পত্য জীবনে সুখি হওয়ার কিছু কার্যকরী টিপস

দাম্পত্য জীবনে সুখি হওয়ার কিছু কার্যকরী টিপস সুখী দাম্পত্য জীবন সকলেই চায়। কিন্তু চাইলেই তো আর জীবনে সুখ পাওয়া যায় না। সুখী দাম্পত্য জীবন পেতে গেলে তার কতগুলি শর্ত মেনে চলতে হয়। এই শর্তগুলি মানলেই জীবন হয়ে ওঠে আনন্দময়। এক সংসারে থাকতে গেলে হাতা আর খুন্তির মধ্যে কিছু ঠোকা ঠুকি তো লাগবেই। কিন্তু তা বলে একসঙ্গে থাকব না বললে কীভাবে চলবে! তাহলে চট জলদি নিচের শর্তগুলিতে চোখ বুলিয়েই ভাবুন কীভাবে সুখী রাখবে আপনার দাম্পত্য জীবনকে দাম্পত্য জীবনে সুখি হওয়ার শর্তসমূহ ১। রাগকে সঙ্গে করে বিছানায় যাবেন না মাথা গরম তো সকলেরই হয়। কিন্তু তা বলে এক মুখ রাগ নিয়ে বিছানায় গেলে কখনো দাম্পত্য আর সুখীর আখ্যা পাবে না। তাই বিছানায় যাওয়ার আগেই নিজের রাগকে থিতু

দাম্পত্য জীবনে সুখি হওয়ার কিছু কার্যকরী টিপস2019-07-07T23:01:24+06:00

অফিসে হাজারো কাজের ফাঁকে নিজেকে সুস্থ রাখার উপায়

অফিসে হাজারো কাজের ফাঁকে নিজেকে সুস্থ রাখার উপায় প্রতিযোগিতার এই যুগে কর্মক্ষেত্রে টিকে থাকতে দশ জনের কাজ করতে হয় এক জনকে । কাজে জয়ী হতে শরীর আর মনোযোগ ঠিক রাখা প্রয়োজন সবার আগে। প্রয়োজন পড়ে স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণের। হাজারো কাজের চাপে খাবার গ্রহণ দূরে থাক, প্রয়োজনীয় বিশ্রাম পর্যন্ত নেয়া সম্ভব হয় না। সেজন্য প্রয়োজন কিছু কৌশল অবলম্বন করা। আপনাকে কর্মক্ষেত্রে প্রাণবন্ত রেখে কাজের উদ্দীপনা জাগাতে এই কৌশলের কোনো বিকল্প নেই, অপরদিকে বাড়তি সময় ব্যয় করার প্রয়োজনই নেই। কাজের ফাঁকে খাওয়ার অভ্যাসে শরীর ঠিক থাকবে, আবার কাজও ঠিক থাকবে। চলুন তাহলে কৌশল গুলো জেনে নেওয়া যাক। ১। দুপুরের খাবার সকালে অফিসে যাওয়ার সময় তাড়াহুড়ো করে বের হওয়ার কারণে বেশিরভাগ কর্মজীবীরই ঠিকমতো নাস্তা করা হয়ে ওঠে না।

অফিসে হাজারো কাজের ফাঁকে নিজেকে সুস্থ রাখার উপায়2019-07-03T00:20:20+06:00

কোন কারনে কেন আপনি সানগ্লাস পরবেন

সানগ্লাস পরা এখন একটা ট্রেন্ড হয়ে গেছে। মডেল, অভিনেতা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের চোখে ঘুরছে বাহারি সানগ্লাস।চোখকে সূর্যের ক্ষতিকর অতি-বেগুনি রশ্মির হাত থেকে রক্ষা করার জন্য সানগ্লাস ব্যবহার করা হয়। সূর্যের ক্ষতিকর অতি-বেগুনি রশ্মি চোখের ভেতরের অংশের ক্ষতি করে। এখানেই শেষ নয়।চোখের পাতা, চোখের চারপাশ, ত্বকে জ্বালাভাব, কালি পড়া, ভাঁজ পড়া ইত্যাদি সমস্যা থেকে বাঁচতে সানগ্লাস পড়া প্রয়োজন। কেন আপনি সানগ্লাস পরবেন? ১. ধূলোবালি থেকে রক্ষা পেতে : রাস্তাঘাটে বের হলেই অনেক ধূলাবালির সম্মুখীন হই। অনেকেরই আবার চোখে অ্যালার্জির সমস্যা থাকে। তারা অবশ্যই ধূলাবালির প্রভাব থেকে চোখকে বাঁচাতে চাইলে সানগ্লাস পরবেন।চোখে অনাকাঙ্খিত পোকামাকড় থেকেও রক্ষা পাওয়া যায়। ২. আলাদা রকমের ভাব দেখাতে : অনেকেই সানগ্লাস পরে ছবি তুললে আলাদা একটা ভাব আসে। যা তাঁকে

কোন কারনে কেন আপনি সানগ্লাস পরবেন2019-05-11T00:28:20+06:00

পারফিউম উপহার দেওয়ার সহজ ও ঝটপট টিপস

উৎসবে কিংবা নানা অনুষ্ঠানে সব জায়গাতে যাওয়ার সময় প্রথমেই যা মাথায় আসে তা হলো উপহার । যখন কারো জন্য উপহার কেনার পালা আসে তখন সেই উপহার নির্বাচন করা নিয়ে তৈরি হয় বিভ্রান্তি ।অনেকে উপহার দেয়া নিয়ে নাকানি চুবানি অবস্তাতেও পরেন।তাই তারা ভাবতে পারেন সহজ ভাবেই, সহজ কিছু। যেমন পারফিউম। পারফিউম একজন মানুষের খুব ব্যক্তিগত একটি প্রসাধনী। প্রতিটি মানুষেরই পারফিউমের পছন্দ ভিন্ন। আর তাই পারফিউম উপহার দেওয়াটাও খুবই অন্তরঙ্গ একটি কাজ। এ কারনে উপহার হিসেবে পারফিউম দেওয়ার আগে চিন্তাভাবনা করে নেওয়া উচিত। আপনার কাছে কোনো পারফিউম ভালো লাগলেই অন্যের কাছে তা ভাল না লাগতেও পারে। পারফিউম গিফট দেওয়ার আগে জেনে নিন কিছু টিপস- পারফিউম উপহার দেওয়ার ঝটপট টিপস ১) পোশাক থেকে আঁচ করুন অনেকের পোশাক থেকেই

পারফিউম উপহার দেওয়ার সহজ ও ঝটপট টিপস2019-05-03T19:54:39+06:00

গরমে পারফিউম কোথায় দিবেন না এবং কোথায় দিবেন

গরমকালে পারফিউম ছাড়া বাইরে বের হওয়ার কথা ভাবতে পারেন না অনেকে। পারফিউম এক বার চাপলে বা স্প্রে করলে নির্দিষ্ট পরিমান লিকুইড বের হয়, যা আমাদেরকে গরমে ঘামের দুরগন্ধ থেকে দূরে রেখে সুগন্ধি দেয়। তবে পারফিউম দিতে গিয়ে আমরা অনেকেই ভুল করে ফেলি। শরীরের ভুল জায়গায় পারফিউম দিয়ে ফেলি এবং পরে এর বাজে অভিজ্ঞতায় পরি যা মেনে নেয়া যায় না। এতে করে হিতে বিপরিত হয়ে যায়। এমনকি উল্টো এতে ক্ষতিই হতে পারে। পারফিউম তাই যেমন তেমন করে লাগালেই হবে না। তাই জেনে নিন শরীরের যেসব জায়গায় পারফিউম না দেওয়াই ভালো- যেখানে পারফিউম দিবেন নাঃ ১) চোখ চোখে পারফিউম দেওয়ার মতো বোকামি করবে না কেউ। কিন্তু ভুলেও যদি চোখে পারফিউম চলে যায় তাহলে দ্রুত অনেক বেশি করে

গরমে পারফিউম কোথায় দিবেন না এবং কোথায় দিবেন2019-05-02T00:14:20+06:00

গরমে এসির বিকল্পে ঘরঠাণ্ডার দারুন সব উপায়

গরমের তীব্রতা দিন কে দিন বেরেই যাচ্ছে। এতো বেশি গরম পরছে যে ফ্রিজের বরফ পর্যন্ত গলতে শুরু করেছে। মাথার ওপর ভোঁ ভোঁ করে দিনরাত ফ্যান ঘুরলেও ঘরের ভেতর এর গরম ভাব যায় না। দিশেহারা হয়ে বাসা থেকে বের হয়ে যেতে ইচ্ছা করেও উপায় নেই । এই সময় এসির ছারা জন অন্য কিছু ভাবাই যায় না। কিন্তু না, এসির বিকল্প আছে। যা আপনাকে দিবে এসির মতই ঠাণ্ডা ঘর। তাই চলুন জানা যাক,গরমেও ঘর ঠাণ্ডা রাখার দারুণ সব কৌশল। গরমে এসির বিকল্পে ঘরঠাণ্ডার দারুন সব উপায় ভারি পর্দাঃ ১। দুপুরের সূর্যের তিব্র তাপ ঘরে ঢুঁকতে দেয়া যাবে না। তার জন্য দক্ষিন ও পশ্চিম পাশের জানালা বা যে সব জানলায় সরাসরি সূর্যের আলো পড়ে সেখানের পর্দা টেনে রাখুন।

গরমে এসির বিকল্পে ঘরঠাণ্ডার দারুন সব উপায়2019-04-24T00:17:24+06:00

রমজানে ওজন নিয়ন্ত্রন বা কমানোর পদ্ধতি

রমজানে রোজা রাখার ফলে সারাদিন আমরা না খেয়েই থাকি এবং মনে করি যে এই সময় ওজন কমে যায়।কিন্তু এই ধারনা ভুল।রোজা ছারা আমরা তিন বেলা খাই এবং রোজার সময়ও তিন বেলাই খাই- সেহেরি, ইফতার আর রাতের খাবার মিলিয়ে। তাই রমজানে ওজন কমে তা ভাবলে ভুল হবে।রমজানে ওজন নিয়ন্ত্রন বা কমাতে কিছু সাধারন জিনিস জানতে বা মানতে হবে তা হল- রমজানে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে বা কমানোর আগে জানতে হবে যে, রমজানে ওজন বারে কেন? ১। রোজা রাখার পর ইফতার করলেও চোখের খিদা মিটানর জন্য আমরা বারতি খাবার খাই। ২।ইফতারে সাধারনত ভাজা পোরা তেলযুক্ত খাবার বেশি খাই। ৩। দীর্ঘ সময় খালি পেটে থাকার ফলে এসিডিটির সমসসা দেখা দেয়। ৪। ইফতারের ৩/৪ ঘণ্টা পরেই রাতের খাবারর খাই, সারা

রমজানে ওজন নিয়ন্ত্রন বা কমানোর পদ্ধতি2019-04-13T23:46:36+06:00

বিশ্বে প্রথমবার নির্মিত হল আল কোরআন পার্ক

বিশ্বে প্রথমবারের মত পবিত্র কোরআন শরিফের আলোকে নির্মিত "আল কোরআন পার্ক" চালু হয়েছে। গত ২৯ মার্চ দুবাইয়ের আল-খাওয়ানিজ অঞ্চলে পার্কটি উদ্বোধন করা হয়। দুবাই-এর আল-খাওয়ানিজ অঞ্চলে ৬৪টি হেক্টর জমির ওপরে নির্মিত । প্রকল্পটি নির্মাণে দুবাই মুদ্রায় ২৭ মিলিয়ন অর্থ ব্যয় হয়েছে। আল কোরআন পার্ক কেনঃ ইসলাম ধর্ম ও কোরআন সম্পর্কে মানুষকে প্রকৃত ধারণা দিতে এই অভিনব পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়। কুরআন আল্লাহর কিতাব। এ কিতাবে বর্ণিত বিধানের বাস্তবায়নেই মিলবে বিশ্বমানবতার মুক্তি। সে আলোকে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আইয়ামে জাহেলিয়াতের যুগে মানুষের মুক্তির লক্ষ্যে যে মিশন চালু করেগেছেন, তা আজও অব্যাহত। এখানে কি কি আছেঃ এ গার্ডেনে আছে একটি গুহা এবং একটি কাঁচের ঘর। কুরআনের অলৌকিক চিহ্নগুলোর আলোকে গুহার মধ্যে কুরআনের

বিশ্বে প্রথমবার নির্মিত হল আল কোরআন পার্ক2019-04-05T18:31:58+06:00

গরমে ঘরের দেয়ালের রঙ কেমন হওয়া উচিৎ?

বাইরে গরম পরতে শুরু করেসে তাই ,সব শান্তি এখন ঘরের চার দেয়ালের মধ্যেই আবদ্ধ । এ কারণে ঘরের সবকিছুতেই এবং বিশেষ করে ছোট ঘরকে বড় দেখানো, ঘরে পরিপাটি ভাব আনতে ও ঘর ঠাণ্ডা রাখতেও রং সাহায্য করে। যেমনঃ ঘর ঠাণ্ডা রাখতেঃ > বিশেষ ওয়েদার কোট পেইন্ট দেয়ালের তাপমাত্রা কমাতে সাহায্য করে। > রং নির্বাচনের সময় হালকা আর কোমল ধরনের রং রাখুন। > সাদা, অফহোয়াইট, পিঙ্ক, স্যান্ডল, পেস্ট, হালকা নীলের মতো উজ্জ্বল রং ঘরকে বড় আর স্নিগ্ধ আমেজ দেয় । > তেমনই গরমের হাত থেকে ঘরকে প্রশান্তিও দেয় । > বাড়ির বাইরের দেয়াল সান প্রটেক্টর রং ব্যবহার করবেন। > ছাদ সহজে গরম হবে না। ফলে ঘরও খানিকটা ঠাণ্ডা থাকবে। > রান্নাঘরে চুলা জ্বালানোর কারণে সবচেয়ে বেশি

গরমে ঘরের দেয়ালের রঙ কেমন হওয়া উচিৎ?2019-04-05T11:29:37+06:00

ওজন অনুযায়ী উচ্চতা কেমন হওয়া উচিত ?

আমরা কোনো কিছু চিন্তা না করেই, যে কাউকে মোটা বা চিকন বলি ।কিন্তু এটা ঠিক না । চিকিৎসা বিজ্ঞান এর মতেঃ বডি মাস ইনডেক্স বা বিএমআই নির্ণয় করে যে কাউকে মোটা বা পাতলা বলা হয় । উচ্চতার অনুযায়ী প্রত্যেকটা মানুষের একটি আদর্শ ওজন আছে । ওজন যদি এই আদর্শ মাত্রায় থাকে, অর্থাৎ এর থেকে বেশি বা কম না হয় , তাহলে ধরা হবে মানুষটি সুস্থ দেহের অধিকারী। শরীর সুস্থ ও সবল রাখতে; শরীরের নমনীয়তা ও সতেজ অটুট রাখতে হলে , ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখাটা খুব প্রয়োজন । শরীরের ওজন খুব বেশি বেড়ে যায়, তখন নানান সমস্যা দেখা দেয়। অন্যদিকে শরীরের ওজন খুব বেশি বেড়ে গেলে, তখনও সমস্যা দেখা দিবে। সব কিছুর যেমন সীমা বা মাপকাঠি আছে

ওজন অনুযায়ী উচ্চতা কেমন হওয়া উচিত ?2019-03-15T19:03:27+06:00

গ্রীন টি এর উপকারিতা ও খাওয়ার সঠিক সময়

গ্রীন টি এর উপকারিতা ও খাওয়ার সঠিক সময় অতিরিক্ত মেদ বা চর্বি কমিয়ে সুন্দর, আকর্ষণীয় ও সচেতন রাখতে চাইলে; ত্বক ও চুল সুন্দর রাখতে চাইলে; বার্ধক্যের ছাপকে ঘুচাতে চাইলে; ক্যান্সারের ,ডায়বেটিসের ,হার্টের ঝুঁকি কমাতে চাইলে; রোজ গ্রীন টি খান। অন্যান্য পানীয় থেকে সবচেয়ে উপকারী পানিও গ্রীন টি। জেনে নেয়া যাক গ্রিন টি’র উপকারিতা সম্বন্ধেঃ ১।  ওজন কমাতে সাহায্য করে। ২।  বয়সের ছাপ পরতে দেয় না,অথচ তারুণ্য ধরে রাখে। ৩।  হার্টের ,ডায়াবেটিস এর, কান্সের ঝুঁকি কমায় । ৪।  রক্তের চাপ নিয়ন্ত্রণ করে । ৫।  এ্যাজমা রোধ করে । ৬।  কানের বেথাকে কমিয়ে ,ফ্ল ও ঠাণ্ডা রোধ করে । ৭।  কোলেস্টেরল কমায়। ৮।  ত্বকের চুলকানি ও প্রদাহ দূর করে । ৯।  চোখের ফোলা ফোলা ভাব,চোখের নীচের ডার্ক

গ্রীন টি এর উপকারিতা ও খাওয়ার সঠিক সময়2019-07-03T00:07:32+06:00

রাঙ্গামাটি ভ্রমণ টিপসঃ ঘুরে আসুন প্রকৃতির রূপসী কন্যা রাঙামাটিতে।

চট্টগ্রাম জেলার মধ্যে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা জনপ্রিয় একটি পর্যটন এলাকা। এখানে পর্যটক দের আকৃষ্ট করার জন্য অনেক কিছু দেখার আছে। বিশেষ করে কাপ্তাই হ্রদ যা, কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত বাঁধের দ্বারা সৃষ্ট করা হয়েছে। এই হ্রদের স্বচ্ছ ও শান্ত পানিতে নৌকা ভ্রমন অত্যন্ত আনন্দময় ও সুখকর । সব চেয়ে দেখার মত দৃশ্য হল হ্রদের উপরে ঝুলন্ত সেতু। জেলার বরকল উপজেলার শুভলং-এর পাহাড়ি ঝর্ণা এর মধ্যে পর্যটকদের কাছে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। ভরা বর্ষা মৌসুমে মূল ঝর্ণার জলধারা প্রায় ৩০০ ফুট উঁচু থেকে নিচে আছড়ে  পড়ে। এছাড়া  কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান উল্লেখযোগ্য ভ্রমণ এলাকা হিসাবে পরিচিত।   অপরূপ দৃশ্যে মন রাঙ্গাতে ঘুরে আসতে পারেন- অপার সৌন্দর্যের রাঙামাটি থেকে। যদি আপনি ঈদ এর মধ্যে রাঙ্গামাটি ভমনে যেতে

রাঙ্গামাটি ভ্রমণ টিপসঃ ঘুরে আসুন প্রকৃতির রূপসী কন্যা রাঙামাটিতে।2019-03-01T14:50:23+06:00

অনলাইন কেনাকাটা বিষয়ে প্রয়োজনীয় টিপস সমূহ

বর্তমানে অনলাইন কেনাকাটা একটি বিশাল ধারা অনুসারে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।এর পরিধি আগের তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। সত্যি আমরা কখনো চিন্তা করতে পারি নাই, আলাউদ্দিনের যাদুর চেরাগ হাতে পাব। আমরা রূপকথা গল্পে দেখেছি, আলাউদ্দিনের যাদুর চেরাগ হতে দৈত্য বের হয়ে ইচ্ছা পুরুন করে দিতো। সেই আলাউদ্দিন চেরাগ এর মতই অনলাইন এ কোন কিছু অর্ডার করলেই আমাদের হাতে চলে আসে। তবে অনলাইন শপিং এর ব্যাপারে এখনো তেমন খুব বেশি প্রচলন হয়ে উঠেনি তবে ধিরে ধিরে অনেক এগিয়ে যাচ্ছে । অনলাইন কেনাকাটা কোন সাইটে গিয়ে করবেন ? আমাদের মধ্যে এখনও অনেকে অনলাইন এ কেনাকাটা বিষয়ে কোন ধারনা নেই। যাদের অনলাইন কেনাকাটা বিষয় একটু ধারনা আছে তারা বেশ প্রাধান্য দিয়ে থাকে। তবে যারাই অনলাইন কেনাকাটা বিষয় প্রাধান্য দেয়

অনলাইন কেনাকাটা বিষয়ে প্রয়োজনীয় টিপস সমূহ2019-03-01T15:35:04+06:00

কেনাকাটা বিষয়ে প্রয়োজনীয় কিছু টিপস-

আমাদের মাঝে অনেকেই আছে যারা  নিয়মিত কেনাকাটা করেন কিন্তু শপিং করতে তারা বিভিন্ন ধরনের ঝামেলার মধ্যে পরে । বিশেষ করে তারা কোনো কিছু কেনার পর মনে করে তারা ঠকে গেছে। অনেকেই আবার  শপিং-এ যেতে চাননা। তারপরও কখনও কখনও তারা তাদের নিজের প্রয়োজনের ক্ষেত্রে অনেক কিছু কিনতে যায়। একটা সহজ কথা, নিয়মিত শপিং করলে যে কোন জিনিসের দাম সম্পর্কে খুব ভালো ধারনা চলে আসে । ফলে ঠকে যাওয়ার সম্ভাবনার হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। কেনাকাটা করতে গেলে আগে থেকে কিছু জিনিস খেয়াল রাখতে হয়। কেনাকাটার সময় আপনার একটু সতর্কের ফলে সময় ও অর্থ দুইটাই বেচে থাকবে। এবারকার পর্বে আপনার কেনাকাটার বিষয়ে বেশকিছু টিপস তুলে ধরলাম।এই টিপস গুলো আপনার সব সময় কাজে লাগবে। নিচে আপনার প্রয়োজনীয় টিপস সমূহ

কেনাকাটা বিষয়ে প্রয়োজনীয় কিছু টিপস-2017-04-16T11:12:43+06:00

বিয়ের আগে নিজেকে ফিট রাখার প্রয়োজনীয় কিছু টিপস

কয়েকদিন পর আপনার বিয়ে হয়ে যাবে কিন্তু আপনি, আপনার শারীরিক গঠন নিয়ে খুবই চিন্তিত কারণ অনিয়মিত খাওয়া দাওয়া এর ফলে আপনার শারীরিক গঠন অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।চিন্তা করার কিছু নেই, সামান্য কিছু টিপস জেনে রাখুন যা দ্বারা খুব সহজে আপনার ফিটনেস ফিরে আসবে। প্রয়োজনীয় টিপসসমূহ বিয়ের কিছু দিন আগে থেকেই আপনার ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখার চেষ্টা করুন।প্রয়োজনীয় খাবার অনেক কম খান। মাঝেমধ্যে বেশি খেয়ে ফেললে চিন্তা করবেন না। রুটি ও ভাত অনেক কম খেয়ে সালাদ একটু বেশি খান। অবশ্যই বেশি বেশি ব্যায়াম করা চেষ্টা করবেন। বাইরের খাবার অবশ্যই পরিত্যাগ করার চেষ্টা করুন।এছাড়া তেলে ভাজা খাবার ভুলেও খাবেন না। সারাদিন বাইরে থাকলে অবশ্যই ড্রাই ফ্রুটস সঙ্গে রাখুন। ড্রাই ফ্রুটস সঙ্গে থাকলে জাঙ্ক ফুড খাওয়ার রুচি কমে যাবে।সব সময়

বিয়ের আগে নিজেকে ফিট রাখার প্রয়োজনীয় কিছু টিপস2019-07-08T11:30:59+06:00