You are here:Home-সৌন্দর্য টিপস-ত্বকের যত্ন

মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় মেছতার সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় অনেককেই। মেছতা হওয়ার অন্যতম কারণ অপরিচ্ছন্ন ত্বক। ঘরোয়া উপায়ে মেছতা দূর করা ও ত্বক পরিষ্কার করার উপায়- ১। লেবু ত্বককে উজ্জ্বল করতে, ত্বকের কালো দাগ দূর করতে লেবুর জুড়ি নেই। এটি ব্লিচের কাজ করে। লেবুর রসের উচ্চমাত্রার সাইট্রিক এসিড ত্বকের অধিক তেল শোষণ করে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ থেকে ত্বককে রক্ষা করে। প্যাক তৈরির উপকরণ (ক) তাজা লেবুর রস ১ চা চামচ (খ) টমেটোর রস ১ চা চামচ উপকরণ গুলি এক সাথে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এটি ত্বকে লাগিয়ে হালকাভাবে ম্যাসাজ করুন এবং ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এক মাস ব্যাবহার করলে ত্বকের মেচতা দূর হবে। এছাড়া তাজা লেবুর রস ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ১৫ থেকে ২০

মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়2019-07-03T00:06:42+06:00

স্ট্রেচ মার্ক বা ত্বকের ফাটা দাগ দূর করার ঘরোয়া উপায়

স্ট্রেচ মার্ক বা ত্বকের ফাটা দাগ কম বেশি সবারি আছে। ছেলে মেয়ে উভয়েরি এটা হয়। হটাত করে শরীর এর পরিবরতনের ফলে এটা হয়ে থাকে। এতে করে ঘাবড়াবার কিছু নেই। নারিকেল তেল, অ্যালোভেরা, চিনি আরও অনেক কিছু দিয়েই দূর করা যায় "স্ট্রেচ মার্ক" বা ত্বকের ফাটা দাগ। স্ট্রেচ মার্ক কেন হয়? অতিরিক্ত ওজন বেড়ে যাওয়া কিংবা অতিরিক্ত ওজন থেকে দ্রুত চিকন হওয়া, সন্তান প্রসবের পর, বয়সন্ধিকালে শরীরে ফাটা দাগ দেখা দিতে পারে। ত্বক দ্রুত আকৃতি পরিবর্তন করলে বা সংকুচিত বা প্রসারিত হলে নারী-পুরুষ উভয়েরই এই দাগ হতে পারে। এর পেছনে কোনো রোগের ভূমিকা নেই। ত্বক যখন প্রসারিত হয়, তখন তার "কোলাজেন" দুর্বল হয়ে যায় এবং ত্বকের উপরিভাগে ফেটে যায় বা চেরা দাগ তৈরি হয়।   স্ট্রেচ

স্ট্রেচ মার্ক বা ত্বকের ফাটা দাগ দূর করার ঘরোয়া উপায়2019-05-01T11:41:30+06:00

মুখের অতিরিক্ত ছোট ছোট কালো তিল দূর করার ঘরোয়া উপায়

মুখে অতিরিক্ত ছোট ছোট তিল হওয়া স্কিন ক্যান্সারের পূর্ব লক্ষণ। আপনি একজন ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন। তবে ভয়ের কিছু নেই । অতিরিক্ত এই তিলের দাগ কিছু প্রাকৃতিক উপায়েই কমানো যেতে পারে। এর জন্য আপনি গরম পানিতে আটার পেস্ট বানিয়ে মুখে নিয়মিত লাগাতে পারেন। এছাড়াও শসার রসও লাগাতে পারেন। এগুলো মুখের অতিরিক্ত ছোট ছোট তিলের দাগ হালকা করতে সাহায্য করে। বাজারে ফ্রিকেলস আউট বা তিল দূর করার বিভিন্ন ধরনের ক্রিম পাওয়া যায় । যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ব্লিচিং উপাদান দিয়ে তৈরি করা। ব্লিচিং উপাদান ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। তাই এই ক্রিম মুখের ত্বকে না লাগানো উচিত। এর পরিবর্তে বিভিন্ন প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করাই উচিত । মুখে ছোট ছোট কালো তিল দূর করার উপায়ঃ ১। পেঁয়াজঃ প্রথমে একটি

মুখের অতিরিক্ত ছোট ছোট কালো তিল দূর করার ঘরোয়া উপায়2019-04-21T11:50:44+06:00

রমযানে প্রাণহীন ও নিস্তেজ ত্বকের যত্নের প্রয়োজনীয় টিপস

রমজানে সারাদিন রোজা রাখার ফলে ত্বক কিছুটা প্রাণহীন ও নিস্তেজ হয়ে পরে। পানির অভাবে ত্বক ত্বকের আর্দ্রতা কমে যায়। রমযান মাসে সিয়াম সাধনার পাশাপাশি এ সময় প্রয়োজন ত্বকের বিশেষ যত্নের। তাই সিয়াম সাধনার পাশাপাশি সহজেই ঘরোয়া ভাবে ত্বকের যত্নের কিছু কার্যকরী টিপস দেয়া হলঃ ব্রণ দূর করার কাজ: সারাদিন রোজা রেখে ইফতারিতে সবাই মুখরোচক খাবার যেমন ভাজা ও তইলাক্ত খাবার বেশি খাওয়া হয়। তাই অনেক বেশি ভাজা খাবার খাওয়ার ফলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। এর ফলে ত্বকে ব্রণ হয়। ত্বক হয়ে যায় নিস্তেজ ও প্রাণহীন। কাঁচা হলুদ ও চন্দনকাঠের গুঁড়া ব্রণের জন্য খুবই কার্যকর উপাদান। সমপরিমাণ কাঁচা হলুদ বাটা ও চন্দন কাঠের গুঁড়া একসাথে নিয়ে পরিমাণমতো পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি ব্রণ আক্রান্ত জায়গায়

রমযানে প্রাণহীন ও নিস্তেজ ত্বকের যত্নের প্রয়োজনীয় টিপস2019-04-19T13:50:38+06:00

রোদে পোড়া দাগ দূর করার সহজ ১৪ টি ঘরোয়া উপায়

গরমের সময় তাপমাত্রার পরিমান বেড়ে যায়। এ সময় বাইরে গেলে রোদের তাপে ত্বকের ক্ষতি হয় প্রচণ্ড ভাবে। তাই রোদে দীর্ঘক্ষণ থাকার ফলে ত্বক পুড়ে কালচে হয়ে যায়। আর যতই সানস্ক্রিন লাগিয়ে রোদে যান না কেন ত্বক কালচে হবেই। তাই সানবার্ন থেকে রক্ষা পেতে নিয়মিত সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করা জরুরি। এর পাশাপাশি প্রখর রোদে ছাতা ব্যবহার করুন। তারপরেও ত্বক রোদে পুড়ে গেলে তা ঘরোয়া উপায়েই দূর করতে পারেন, পোড়া দাগ। চলুন জেনে নেয়া যাক কীভাবে দূর করবেন রোদে পোড়া দাগ- পোড়া দাগ দূর করার উপায়ঃ গোসলঃ  ১। দিনে কমপক্ষে দুবার ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করুন। এতে ত্বকের পোড়া ভাব দূর হবে ও সতেজ থাকবে। আলুঃ ২। বাসায় ফিরে এসে আলু ব্লেন্ড করে মুখে লাগান। এতে কালচে

রোদে পোড়া দাগ দূর করার সহজ ১৪ টি ঘরোয়া উপায়2019-04-17T16:19:28+06:00

তৈলাক্ত ত্বকের যন্ত্রণা থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়ার ঘরোয়া টিপস

তৈলাক্ত ত্বকের যন্ত্রণা থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়ার কিছু ঘরোয়া টিপস যাদের ত্বক তৈলাক্ত,তারা ত্বক নিয়ে বেশী সমস্যায় পড়েন। তেল চিটচিটে ভাবের জন্য মুখে কোনো কিছুই মানায় না। আবার ত্বকের তৈলাক্ততার জন্য উপরিভাগে জমে ময়লা। সব মিলিয়ে তৈলাক্ত ত্বক খুব সহজেই ব্রণের আক্রমণের শিকার হয়। ভালো ফেসওয়াশ, দামী ফেসিয়াল ইত্যাদি যত যাই করুন না কেন, তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি মেলে না। কিছুক্ষণ পরই ফিরে আসে তেল চিটচিটে ত্বক আর আপনার মলিন হওয়া চেহারা। ১। লবণের স্প্রে উপকরণ ও পরিমাপ (ক) স্প্রে বোতল ১টি (খ) পানি ১ কাপ (গ) লবন ১ টেবিল চামচ ব্যাবহার বিধি লবণের রয়েছে ভেতর থেকে ত্বকের তেল-ময়লা দূর করার ক্ষমতা। তাই এটা খুব কার্যকরী ত্বকের তৈলাক্ততা দূর করতে। একটি স্প্রে বোতলে পানি নিয়ে

তৈলাক্ত ত্বকের যন্ত্রণা থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়ার ঘরোয়া টিপস2019-07-03T00:07:00+06:00

মুখের অবাঞ্ছিত লোম হওয়ার কারন ও দূর করার ঘরোয়া উপায়

মুখের অবাঞ্ছিত লোম হওয়ার কারন ও দূর করার ঘরোয়া উপায় বর্তমান সব মেয়েদের একটি কমন সমস্যা হচ্ছে অবাঞ্ছিত লোম। মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করার অনেক ধরণের ব্যবস্থা রয়েছে। তবে বেশিরভাগই বেশ কষ্টদায়ক। অনেক ক্ষেত্রে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও থাকে। মুখের এই অবাঞ্ছিত লোম দূর করার কিছু ঘরোয়া সহজ পদ্ধতি রয়েছে। এই পদ্ধতিগুলো প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি করা হয় বলে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। হিরসুটিজম বা অবাঞ্ছিত লোম হওয়ার প্রধান কারণ : ১। নারীর রক্তে পুরুষ হরমোন এন্ড্রোজেনের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে ২। জেনেটিক কারণে এবং ৩। হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণে। যাদের এই সমস্যা আছে লজ্জার কিছু নেই। সুখবর হচ্ছে অবাঞ্ছিত লোম দূর করার জন্য ব্যয়বহুল ও ব্যথাযুক্ত ট্রিটমেন্ট করার পরিবর্তে প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করেই এই অস্বস্তিকর সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে

মুখের অবাঞ্ছিত লোম হওয়ার কারন ও দূর করার ঘরোয়া উপায়2019-04-07T17:47:46+06:00

ব্রণের দাগ দূর করার কিছু প্রাকৃতিক উপায়

ব্রণের দাগ দূর করার  প্রাকৃতিক উপায় বাংলাদেশে ঋতু ভেদে বসন্ত শেষে আসে গ্রীষ্মকাল। আর এই গ্রীষ্মের সূর্যের প্রখর তাপে সবচেয়ে খতিগ্রস্থ হয় ত্বক। সূর্যের ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মি ত্বকের উজ্জ্বলতা নষ্ট করে দেয় এবং ত্বকের ব্রণের কারনে ত্বকের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায়। ত্বকের তৈল গ্রন্থি ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হলে এর আকৃতি বেড়ে যায় এবং এর ভিতরে পুজ জমা হতে থাকে। যেটা ধীরে ধীরে  ব্রণে পরিণত হয়। সাধারনত টিনেজার মেয়েরা বেশি ব্রণের সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকে। তবে তরুণ তরুণী, মধ্যবয়সী নারীরাও এই সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে বাজারের দামি কসমেটিক্স ব্যাবহারের পরিবর্তে ঘরোয়া পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন। ঘরোয়া পদ্ধতি অনেক বেশি কার্যকরী এবং নিরাপদ। কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি নিছে দিয়া হল   ১। লেবু 

ব্রণের দাগ দূর করার কিছু প্রাকৃতিক উপায়2019-07-03T00:07:39+06:00

ত্বক সুন্দর করার প্রয়োজনীয় টিপস

আপনি আপনার নিজের ত্বকের যত্ন নিজেই নিতে পারবেন খুব সহজেই। নিচের এই গুরুত্বপূর্ণ টিপস গুলো অনুসরণ করুন এবং নিজে নিজেই এর সুফল ভোগ করুন।  এই টিপস গুলো শুধু মেয়েদের জন্যই প্রযোজ্য নয় চাইলে ছেলেরাও এই টিপস অনুসরণ করে সুফল ভোগ করতে পারবেন। নিচের ২০টি টিপস ভালো করে পড়ুন টিপস নং ১ যতটা সম্ভব হয় আপনার ত্বককে রোদ থেকে বাচিয়ে রাখুন। রোদে বের হলে অবশ্যই ছাতা ও সানগ্লাস ব্যবহার করুনা। এছারা সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে পারেন। টিপস নং ২ আপনি যদি সুইমিং পুল, সমুদ্রের পাড়ে বা বরফ আছে এমন জায়গায় যেতে চান তাহলে অবশ্যই সান স্ক্রিন ব্যাবহার করবেন। কারণ পানি বা বরফে এর মাধ্যমে সূর্যরশ্মি বেশি প্রফলিত হয় যার ফলে ত্বক নষ্ট হয়ে যায়। টিপস নং ৩ অনেকের

ত্বক সুন্দর করার প্রয়োজনীয় টিপস2019-03-18T16:44:13+06:00

শীতের মাঝেও ত্বক থাকুক সুস্থ্য

শীতে ত্বকের যত্ন – শীতের দিনে হিমেল হাওয়া এবং আর্দ্রতা ভাব কমে যাওয়ার  জন্য আমাদের শরীরের ত্বক যেমন খসখসে হয়ে যায়, বাইরের প্রকৃতিও তেমনি শুকিয়ে যায় বেড়ে যায় বাতাসে ধুলাবালুর পরিমান। সেজন্যই শীতের মাঝে ত্বককে সুস্থ রাখতে  নিতে হয় আমাদের বাড়তি যত্ন। আমরা আজকে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করবো নিয়মিত গোসল করুনঃ নিয়মিত গোসল করা থেকে দূরে থাকতে চান শীতের সময় ঠান্ডার কারণে অনেকেই ; যা আপনার জন্য শুধু খারাপই নয়, শরীরের বিভিন্ন সমস্যাও সৃষ্টি করে।  যখন আপনি গোসল করবেন শরীর সঠিক ভাবে সব যায়গায় পানি পাবে, ফলে স্কিন শুস্ক থাকা থেকে রক্ষা পাবে। তাই নিয়মিত গোসল করাটা অতীব জরুরী। ময়েশ্চারাইজিং সাবান ব্যবহার করুনঃ শীতের সময় সাবান অনেক কম ব্যবহার করবেন; আর ব্যবহার যদি করতেই চান তাহলে  ময়েশ্চারাইজিং যুক্ত

শীতের মাঝেও ত্বক থাকুক সুস্থ্য2017-04-04T19:05:51+06:00

ত্বকের ধরন অনুযায়ী ত্বকের যত্ন

ত্বকের ধরন অনুযায়ী ত্বকের যত্ন নেওয়াটা একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ । সভ্যতার জন্মলগ্ন থেকে শুরু হয় মানুষের রূপচর্চার ইতিহাস। ইতিহাসের পাতা উল্টালে দেখা যাবে খৃষ্টপূর্ব ১০ হাজার বছর আগে মেসোলিথীস সভ্যতার মানুষদের ভেতর এই রূপ চর্চার প্রচলন ছিল। আর বর্তমান যুগেতো বলার  কোন অপেক্ষা রাখেনা। তবে আমরা প্রত্যেই ত্বকের যত্নের ক্ষেত্রে বিশেষ কয়েকটি সমস্যার সম্মুখিন হয়ে থাকি যেমন কার ত্বক তৈলাক্ত, কার শুস্ক, কারটা আবার  মিশ্রভাব থাকে। এই সমস্যাগুলি নিয়ে আলোচনা করবো আমরা। তৈলাক্ত ত্বকের যত্নঃ ১. তৈলাক্ত ত্বকের জন্য চালের গুড়া খুবিই কার্যকরি একটি উপাদান। আপনি স্ক্রাব হিসেবে চালের গুঁড়াকে ত্বকের জন্য ব্যবহার করতে পারেন। এটি ত্বকের মাত্রা অতিরিক্ত তেল শুষে নিয়ে ত্বককে রাখেবে তেল মুক্ত। ২. ত্বকের তৈলাক্ততা দূর করতে শশার রস অনেক ভালো কাজ করে। আপনি

ত্বকের ধরন অনুযায়ী ত্বকের যত্ন2017-04-04T18:34:31+06:00

ত্বকের লাবন্য ধরে রাখতে ঘরোয়া ফেসিয়াল

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের কর্ম পরিধি ব্যস্ততা বেড়েই চলেছে। বিশেষ করে আজকাল মেয়েদের লেখাপড়া সাথে সাথে কর্মক্ষেত্রেও অনেক ব্যস্ত সময় কাটান। যার ফলে তারা তাদের স্কিনের প্রতি নজর রাখার জন্য আলাদা সময় পান না। কিন্তু সুন্দর ত্বক প্রতিটি মেয়ের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু সত্যিকার অর্থে তাদের পক্ষে ত্বকের যত্ন নেওয়ার অতিরিক্ত সময়টুকু বের করা অনেক কঠিন হয়ে পরে। প্রতি ১৫ দিনে একবার সম্ভব না হলে মাসে অন্তত একবার স্কিনকে ভালো রাখতে ফেসিয়াল করা প্রয়োজন। যথাযথ সময়ের অভাবে অনেকেরই বিউটি পার্লারে যেয়ে ফেসিয়াল করা হয় না। তাই কর্ম ব্যস্ত নারীরা চাইলে ঘরে বসে থেকেই নিজে নিজে ফেসিয়াল করে তাদের স্কিনের লাবন্য ধরে রাখতে পারেন।  কেন দরকার ফেসিয়ালঃ প্রতিদিন ফেসিয়াল করার ফলে আপনার মুখের ত্বক হবে সুন্দর ও আকর্ষণীয়

ত্বকের লাবন্য ধরে রাখতে ঘরোয়া ফেসিয়াল2017-04-06T18:49:37+06:00