বিশ্বে প্রথমবারের মত পবিত্র কোরআন শরিফের আলোকে নির্মিত “আল কোরআন পার্ক” চালু হয়েছে। গত ২৯ মার্চ দুবাইয়ের আল-খাওয়ানিজ অঞ্চলে পার্কটি উদ্বোধন করা হয়।

Al Quran Park is built for the first time in the world map-top tips

দুবাই-এর আল-খাওয়ানিজ অঞ্চলে ৬৪টি হেক্টর জমির ওপরে নির্মিত ।

Al Quran Park is built for the first time in the world,fornt gate-top tips

প্রকল্পটি নির্মাণে দুবাই মুদ্রায় ২৭ মিলিয়ন অর্থ ব্যয় হয়েছে।

Al Quran Park is built for the first time in the world,road in the river-top tips

আল কোরআন পার্ক কেনঃ

ইসলাম ধর্ম ও কোরআন সম্পর্কে মানুষকে প্রকৃত ধারণা দিতে এই অভিনব পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

কুরআন আল্লাহর কিতাব। এ কিতাবে বর্ণিত বিধানের বাস্তবায়নেই মিলবে বিশ্বমানবতার মুক্তি।

সে আলোকে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আইয়ামে জাহেলিয়াতের যুগে মানুষের মুক্তির লক্ষ্যে যে মিশন চালু করেগেছেন, তা আজও অব্যাহত।

Al Quran Park is built for the first time in the world,cave outsite-top tips

এখানে কি কি আছেঃ

এ গার্ডেনে আছে একটি গুহা এবং একটি কাঁচের ঘর।

Al Quran Park is built for the first time in the world, cave inside-top tips

কুরআনের অলৌকিক চিহ্নগুলোর আলোকে গুহার মধ্যে কুরআনের উল্লেখিত বিষয়গুলো আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছে ।

আর কাচের ঘরে বিভিন্ন উদ্ভিদ পরিদর্শন এবং বিক্রয়ের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে।

এর এক প্রান্তে পবিত্র কুরআনে উল্লিখিত উদ্ভিদসমূহও লাগানো হয়েছে।

এ সব উদ্ভিদসমূহের এমন অনেক উদ্ভিদ রয়েছে, যা দ্বারা ভেষজ চিকিৎসা করা যায়।

এ পার্কে আরো যা আছে তা হল – একটি ইসলামিক বাগান, বৃহৎ গ্রিনহাউজ, মরুভূমির বাগান এবং দক্ষিণ স্পেনের বাগানগুলির শৈলীতে নির্মিত আন্দালুসিয়ান বাগান।

Al Quran Park is built for the first time in the world,cave site map-top tips

তাছাড়া ডুমুর, ডাল, জলপাই, ভুট্টা, লেক, রসুন, পেঁয়াজ, মশলা, বার্লি, গম, আদা, কুমড়া, তরমুজ, আম, সিলার, আংগুরক্ষেত, কলা, কাছিড় এবং তুঁত ইত্যাদি পরিকল্পনা মাফিক সাজানো আছে।

পবিত্র কুরআনে বর্ণিত ৫৪ প্রজাতির মধ্যে ৩৫টি পার্কের অভ্যন্তরে প্রদর্শিত হবে এবং অবশিষ্ট ১৫টি গ্রিন হাউজে প্রদশিৃত হবে ।

আরো ২০টি প্রজাতি পার্কের বাইরের প্রদর্শিত হবে।

এছাড়া পার্কে দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে কোরআনের প্রাসঙ্গিক আয়াত ও ঘটনা লিখে দেয়া হয়েছ প্রতিটি নির্মাণের পাশে।

কুরআনে বর্ণিত ঘটনার কোনো বর্ণনার চিত্রায়ন ও সাজসজ্জা বাদ যায়নি এ পার্কে।

এ পার্কে রয়েছে মরুদ্যান, পাম বাগান, নয়নাভিরাম লেক, চলমান রাস্তা এবং সাইক্লিনিং ট্র্যাক ও হাঁটার রাস্তা।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আকর্ষণ দৃষ্টিনন্দন ঝরনা। গ্লাস নির্মিত স্বচ্ছ ভবন।

কুরআনের বর্ণনায় একটি গুহার আবহও তৈরি করা হয়েছে।

জানা যায়, কোরআনে উল্লেখিত ৫৪টি গাছের সমন্বয়ে ১২টি উদ্যান রয়েছে পার্কটিতে। এছাড়া এতে কৃত্রিম হ্রদও তৈরি করা হয়েছে।পার্কটিতে রয়েছে মূল প্রবেশদ্বার, প্রশাসনিক ভবন, ইসলামিক বাগান, শিশুদের খেলার স্থান, দর্শনীয় স্থান, উন্মুক্ত আঙ্গিনা এবং কুরআনের অলৌকিক ঘটনার বর্ণনাসমৃদ্ধ এলাকা।

দুবাইভিত্তিক গণমাধ্যম খালিজ টাইমস জানিয়েছে, বিনামূল্যে পার্কটিতে প্রবেশের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও পার্কটি শুধু মুসলিম দের জন্য নয়, সব ধর্মের মানুষদের জন্যই এটি উন্মুক্ত। পার্কটির মাধ্যমে ইসলামের অর্জনগুলো মানুষ ভালোভাবে জানতে পারবে ।

পার্কে একটি টানেল থাকবে যা অলৌকিক ঘটনার অডিওসহ চিত্র তুরে ধরবে। পর্যাপ্ত খোলা জায়গা এবং পার্কিংয়ের ব্যবস্থা থাকবে।